Breaking News

প্রকাশ্যে সন্তানকে স্ত-নপা-ন করাতে গিয়ে বিতর্কের মুখে পড়লেন আরজে অনমলের স্ত্রী অমৃতা! তুমুল ভাইরাল হলো ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন:মা ছাড়া জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত অচল।ভগবানের দেওয়া সব থেকে দামি উপহার হচ্ছে মা। এবং দেখতে গেলে প্রথম খাবারও কিন্তু মাতৃদুগ্ধ।একজন শিশু জন্মের পর থেকেই মায়ের স্তনের উপর নির্ভর করে বেঁচে থাকে। পরবর্তীতেও মা এবং বাবা দুজনের ছায়া তলে থেকে লালিত পালিত হয়। এমতাবস্থায় সদ্য বাবা হয়ে নিজের স্ত্রীর উদ্দেশ্যে একটি ছবি শেয়ার করলেন আরজে আনমোল।

প্রসঙ্গত প্রায় কয়েক মাস আগেই পিতা হয়েছেন তিনি। কিন্তু অজ্ঞাত কারণবশত সন্তানকে সোশ্যাল মিডিয়ার লাইমলাইট থেকে দূরেই রেখেছিলেন।তারপর হঠাৎ করেই কিছুদিন আগে স্ত্রী অমৃতা রাওকে নিয়ে তাকে একটি ছবি শেয়ার করতে দেখা যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। যেখানে ভক্তগণ দেখতে পান তাদের সদ্যজাতকে।

সম্প্রতি আবারও ছোট্ট শিশুকে অমৃতার স্ত-ন্য-পান করানোর একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করে নিয়েছেন আনমোল। যেখানে দেখা যাচ্ছে ক্যামেরার দিকে পিছন ঘুরে শিশুকে স্ত-ন্যপান করাচ্ছেন ‘বিবাহ’ খ্যাত অভিনেত্রী অমৃতা। ছবিটি শেয়ার করে ক্যাপশনে আনমোল লিখেছেন,”প্রতিদিন বীরকে স্তন পান করানোই হলো আমার দেখা সবচেয়ে সুন্দর দৃশ্য।

এটি এতোটাই জাদুকরী, বাস্তব ও কঠিন যা ঐশ্বরিক। অমৃতা রোজ হাসিমুখে এটি করে”।এই প্রসঙ্গে বলে রাখি কিছুদিন আগেই জাঁকজমক সহকারে নামকরণ অনুষ্ঠানে নিজেদের ছেলের নাম বীর রেখেছেন অমৃতা- আনমোল।সাধারণত বেশিরভাগ তারকা দম্পতিরাই নিজের নামের সঙ্গে মিলিয়ে সন্তানের নাম রাখতে পছন্দ করেন। কিন্তু এই নিয়মের অনেকটাই ব্যতিক্রম লক্ষ্য করা যাচ্ছে অমৃতার সন্তানের ক্ষেত্রে।

উল্লেখ্য প্রায় ৭ বছর প্রেম সম্পর্কে আবদ্ধ থাকার পর ২০১৬ সালে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন এই দম্পতি। এরপর ২০২০ সালে অমৃতা-আনমোলের সন্তানের জন্ম হয়। অপরদিকে অমৃতা একজন জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রীও।বিগত বহু বছর ধরে তিনি দর্শকদের উপহার দিয়েছেন একের পর এক হিট সিনেমা। যেমন- ‘বিবাহ’, ‘আব কে বরস’, ‘ম্যায় হু না’ প্রভৃতি।

About 24Ghanta News

Check Also

একসাথে লাইভে আসলো অঙ্কুশ-জিৎ-শুভশ্রী-বিক্রম, সকলেই মা-তলেন হাসিঠাট্টায়, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন :- বাংলার অভিনয় জগতে এমন অনেক অভিনেতা এবং অভিনেত্রী থেকে থাকেন যারা শুধুমাত্র …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *