পড়ে থাকা গাছের গুড়ি থেকে উ-দ্ধা’র দুই বড় বিশালাকার কো-ব’রা, উ-দ্ধার করতে গিয়েই ঘটলো বি-প’ত্তি!

নিজস্ব প্রতিবেদন:সোশ্যাল মিডিয়ার সাহায্যে আমরা খুব সহজেই এমন কিছু ভিডিও দেখতে পাই যা আমাদেরকে আশ্চর্য করে রেখে দেয়। সাধারণত কোনদিনই খালি চোখে এই সব ভিডিও আমাদের পক্ষে দেখা সম্ভবপর নয়। তাই বর্তমানে আমরা সারাটা দিন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ওপর নির্ভরশীল থাকি। বর্তমানে অনেকেই এই নেট দুনিয়াকে গণমাধ্যম এর থেকেও বেশি শ-ক্তি-শালী বলে মনে করছেন। গণমাধ্যম অর্থাৎ টেলিভিশন এবং সংবাদপত্র।

কারণ যে কোন খবর দ্রুত এই নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়ে ওঠে।টেলিভিশনে আসার আগেই আমরা অনলাইন নিউজ পোর্টাল গুলিতে বিভিন্ন ধরনের খবরা খবর পেয়ে থাকি। তাই বর্তমানে টেলিভিশনকে ছেড়ে সামান্য কিছু নেটের পয়সা খরচ করে সকলেই স্মার্ট ফোন ব্যাবহার করছেন।

সোশ্যাল মিডিয়া শুধুমাত্র ভিডিও দেখার জন্য নয়, যে কোন মানুষকে পরিচিতি দেওয়ার জন্যও ব্যবহৃত হয়। কোন অসুবিধা এবং অর্থকষ্ট থাকায় যেসব মানুষ নিজেদের প্রতিভাকে সঠিক ভাবে বিকশিত করতে পারেননি তারাই সোশ্যাল মিডিয়াকে অনন্য প্ল্যাটফর্ম হিসেবে বেছে নিয়েছেন। আজকাল আমরা সোশ্যাল মিডিয়া অর্থাৎ ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার প্রভৃতি খুললেও আমরা দেখতে পারি সেখানে নানান ধরনের নাচ গান এবং অন্যান্য বিভিন্ন ভিডিও শেয়ার করা হয়েছে।

এর মধ্যে কিছু ভিডিও আছে যা আমাদের জ্ঞান লাভ করতে সাহায্য করে। সম্প্রতি সাপ সংক্রান্ত একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, একটি পুরনো কোটরের মধ্যে 22 বছর ধরে একটি কোবরা সাপ বসবাস করছে। সাপটিকে দেখেই বোঝা যাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে সেই জায়গায় বসবাস করছে সে।কিন্তু হয়তো আচমকাই গ্রামবাসীরা এই সাপটিকে দেখতে পায়।

এই ধরনের বি-ষা-ক্ত সাপ লোকালয়ের মধ্যে থাকা একেবারেই উচিত নয় ভেবে উদ্ধারকারীদের খবর দেওয়া হয়।উদ্ধারকারী যুবকেরা উপস্থিত হয়ে বেশ কায়দা সহকারে স্টিলের লাঠির সাহায্যে সাপটিকে বের করে নিয়ে আসেন। জানা যায় এই সাপটি ছিল বি-ষ-ধ-র কিং কো-ব-রা। যার এক ছো-বলে-ই যেকোনো প্রানের প্রা-ন নি-স্তব্ধ হয়ে যেতে পারে । প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এই সাপের বি-ষ সোজাসুজি প্রাণীর স্নায়ুতন্ত্র কে আ-ক্র-মণ করে।যার ফলে প্রাণীর স্নায়ু-তন্ত্র পক্ষা-ঘগ্রস্ত হয়ে মৃ-ত্যু ঘটে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button