মিড-ডে-মিল নিয়ে বিশাল বড় সিদ্ধান্ত নিলো কেন্দ্র! স্কুল গুলি সরাসরি পাবেনা মিড-ডে-মিলের টাকা! জেনে নিন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- এবার মিড ডে মিলের খরচের উপর নজর রাখতে চলেছে কেন্দ্র ।আমরা জানি যে ভারতবর্ষের প্রতিটি রাজ্যের প্রতিটি সরকারি স্কুলে চালু হয়েছে মিড ডে মিল ব্যবস্থা । এই ব্যবস্থার মাধ্যমে তাদেরকে পুষ্টিযুক্ত খাবার প্রদান করা হয় যাতে তাদের শরীর সুস্থ স্বাভাবিক থাকে এবং নির্বিঘ্নে পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে। কিন্তু এই মিড ডে মিলের টাকা নিয়ে এর আগে একাধিকবার অভিযোগ উঠে এসেছে তাই সেই টাকা যাতে না হয় তাই তার ওপর নজর রাখতে চলেছে বার কেন্দ্রীয় সরকার।

বেশ কিছুদিন আগে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে মনটা জানানো হয়েছিল যে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে আরো পুষ্টিযুক্ত খাবার প্রদান করার জন্য অতিরিক্ত অর্থ খরচ করতে প্রস্তুত কেন্দ্রীয় সরকার।এই প্রকল্পের জন্য কেন্দ্রীয় সরকার 55 হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে। পাশাপাশি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল গুলি 32 হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে ।পাশাপাশি 45 হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত মিড ডে মিলের সামগ্রী কেনার জন্য খরচ করবে কেন্দ্রীয় সরকার ।অর্থাৎ এই প্রকল্পের জন্য সর্ব মোট বরাদ্দ টাকার পরিমাণ হলো 1 লক্ষ 30 হাজার কোটি টাকারও বেশি।

এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো ও পুষ্টির অভাবে কোন বাচ্চা যাতে রোগগ্রস্ত না হয় বা সমস্যার সম্মুখীন না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখা। তবে এবার কেন্দ্রীয় সরকার মিড ডে মিল এর উপর কড়া নজর রাখতে চলেছে। সম্প্রতি সূত্র মারফত এমনটা জানা গেছে যে কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিটি স্কুলের উপর মিড ডে মিল এর অর্থ কতটা পরিমাণ খরচ হচ্ছে তার হিসেব এর উপর কড়া নজর রাখতে চলেছে মূলত অর্থ অপচয় করা বা সঠিকভাবে ব্যবহার না করার অভিযোগ উঠে এসেছে এতদিন ধরে।

এবার সেই অভিযোগকে খতিয়ে দেখতে এই পথে হাঁটতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার আমরা জানি যে মিড ডে মিলে যা খরচ হয় তার মধ্যে 60% প্রদান করে কেন্দ্র এবং 40% প্রদান করে রাজ্য ।তবে কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে যে হিসাব রাখার কথা বলা হয়েছে সেটি শুধু মাত্র 60 শতাংশের ওপর ।অর্থাৎ কেন্দ্রীয় সরকার যে অর্থ প্রদান করেন তার হিসাব রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এর জন্য অতি অবশ্যই খুলতে হবে একটি জিরো ব্যালেন্স এর অ্যাকাউন্ট।

এই অ্যাকাউন্টে কেন্দ্র দেবে ৬০% টাকা এবং রাজ্য দেবে ৪০% টাকা। বছরের শেষে যদি দেখা যায় কেন্দ্র যে টাকা দিয়েছিল তার কিছু অবশিষ্ট রয়েছে তাহলে পরের কিস্তিতে সেই মোট বরাদ্দ থেকে অবশিষ্ট টাকা বাদ দিয়ে বাকি টাকা অ্যাকাউন্টে পাঠাবে কেন্দ্র। অনেকেই বলছেন রাজ্য তাদের অংশের বরাদ্দ ঠিক মতো খরচ করছে নাকি কেন্দ্রীয় বরাদ্দে পুরো প্রকল্প পরিচালিত করছে সেটাই দেখতে চাইছে কেন্দ্র।যদিও রাজ্যের শিক্ষা দপ্তর এমনটা মনে করছে যে রাজ্য সঠিকভাবে টাকা প্রদান করছে কিনা সেই বিষয়ের উপর চাপ সৃষ্টি করতে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। একটি ব্যাংক এই প্রকল্পের নোডাল ব্যাংক হিসেবে কাজ করবে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button