‘আমাকে নিয়ে গু’জব ছড়ানো বন্ধ করুন, আমি কারোর সন্তানের বাবা নই’,-ব্যাপক রে’গে গেলেন অভিনেতা যশ, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন:জনপ্রিয় নায়িকাদের মধ্যে অন্যতম নুসরাত জাহান। অভিনয় ক্ষেত্রে বরাবর তিনি সাফল্য লাভ করলেও ব্যক্তিগত জীবনে তিনি নিজের বিবাহ ধরে রাখতে অসফল হয়েছেন। ফলস্বরূপ কিছুদিন ধরেই সংবাদ শিরোনামে রয়েছেন অভিনেত্রী। অভিনেত্রী ছাড়াও তার আরেকটি পরিচয় রয়েছে; রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ তিনি।

বিগত প্রায় বেশ কিছু সময় ধরে এই দলের সাথে যুক্ত রয়েছেন নুসরত।সম্প্রতি চলতি বছরের বিধানসভা নির্বাচন শুরু হওয়ার আগে হঠাৎ করেই নুসরাতের সাথে ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী যশ দাশগুপ্তর সম্পর্কের কথা সামনে চলে এসেছিল। যদিও উভয়ই এই সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেছিলেন।

এই প্রসঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে যশ দাশগুপ্ত বলেন,”নুসরাতের সঙ্গে কেন আমার নাম জড়ানো হচ্ছে তা বুঝতে পারছিনা। এটা নুসরাত এবং নিখিলের একান্তই ব্যক্তিগত ব্যাপার”। যদিও নুসরাত এবং নিখিল এই প্রসঙ্গে বিশেষভাবে কোনো মন্তব্য করেননি। এমতাবস্থায় আচমকাই দিন কয়েক আগে নিজের বিয়েকে আইনগতভাবে অ-বৈধ বলে ঘোষণা করেন নায়িকা।

উল্লেখ্য বছর তিনেক আগে 2019 সালে তুরস্কে বিয়ে সেরেছিলেন নুসরাত এবং নিখিল।সেই সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের বিয়ের নানান ছবি ভাইরাল হয়েছিল। ভিন্ন ধর্মের হওয়া সত্বেও নিখিল কে বিয়ে করে হিন্দু ধর্মের সমস্ত নিয়মাবলী পালন করেছিলেন অভিনেত্রী।যা নিয়ে বেশ বিতর্কের মুখে পড়তে হয়েছিল তাকে।

প্রসঙ্গত দিন কয়েক আগে নিজের ইনস্টাগ্রামে এক পোষ্টের মাধ্যমে নুসরাত জানান,তাদের বিয়ে তুরস্কে হয়েছে এবং হিন্দু মুসলিম বিয়ের বিশেষ আইন অনুযায়ী তার রেজিস্ট্রেশন হয়নি। সুতরাং এটি কোনোভাবেই বৈধ বিবাহ নয়। জল্পনা আরো বাড়িয়ে জানা গেছে এক মাসের অন্তঃসত্ত্বা রয়েছে নুসরাত। এবারে নিখিল জৈন এই সন্তানের পিতৃত্ব সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করে দিয়েছেন। যার ফলস্বরুপ পিতা হিসেবে নাম সামনে আসছে অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের।

তাইতো বারবার সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের মুখোমুখি পড়ছেন তিনি। যদিও এ কথা স্বীকার করতে নারাজ অভিনেতা। বরং অনেকটা ক্রুদ্ধ হয়ে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, তাকে কেন্দ্র করে এই বিষয়ে গুজব না ছড়াতে। তিনি কারোর সন্তানের পিতা নন। এই পরিস্থিতিতে নুসরাতের কাছের বান্ধবী মিমি জানিয়েছেন “সময় আসলেই জানতে পারা যাবে এই সন্তানের আসল পিতা কে। হয়তো নুসরাত নিজেই জানাবেন এই বিষয়ে। তাই অতিরিক্ত কৌতূহলের প্রয়োজন নেই”।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button