বাড়িতে বসে মাত্র 5000 টাকা বিনিয়োগ করে এই ব্যবসা শুরু করুন! পাবেন 50% সরকারি সাহায্য! রইল বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :-বর্তমানের ভেঙেপড়া এই অর্থনৈতিক অবস্থা তে আপনি যদি পুনরায় নিজের জীবনকে সুন্দর এবং মসৃণ ভাবে অতিবাহিত করতে চান তাহলে অতি অবশ্যই ব্যবসায় মনোনিবেশ করুন ।ইতিমধ্যে অনেকেই ব্যবসায় মনোনিবেশ করেছে এবং ছোটখাটো পছন্দের মতন ব্যবসা শুরু করে দিয়েছেন। হয়তো একটা সময় পাশে সমস্ত ব্যবসা গুলি অধিক লাভবান হতে চলেছে। তবে আপনি যদি মনে করে থাকেন যে ব্যবসা করেন তাহলে বাড়িতে বসেই মাত্র পাঁচ টাকা বিনিয়োগ করে কিন্তু এই ব্যবসা করতে পারেন এই ব্যবসাটি হলো বনসাই গাছের ব্যবসা।

বাড়ির সৌন্দর্য’ তাকে ফিরিয়ে আনার জন্য হোক কিংবা ওষুধ পত্র তৈরি বা বাস্তুতন্ত্রে কোন দোষ কাটানোর জন্য হোক বনসাই গাছ কিন্তু অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি গাছ । এই গাছের ব্যবসা আপনি অনায়াসে বাড়িতে বসেই শুরু করতে পারেন ।উদ্ভিদ প্রেমী দের কাছে এই গাছ অত্যন্ত আকর্ষণীয়। অনেকে এটিকে লাকি প্লান্ট হিসেবেও বিবেচনা করে থাকে। পাশাপাশি ব্যবসা শুরু করলে সরকার আপনাকে সাহায্য করবে সম্পূর্ণ রকম ভাবে ।আমার কথা বিশ্বাস না হলে সম্পূর্ণ প্রতিবেদনটি পড়ে দেখুন।

দুরকম উপায়ে শুরু করা যেতে পারে বনসাই গাছের ব্যবসা। প্রথমত, বাড়িতেই বনসাই গাছ তৈরি করে তা বিক্রি করতে পারেন। তবে বনসাই গাছ পরিপুষ্ট হতে ন্যুনতম দুই থেকে পাঁচ বছর সময় লাগবে। যদি তা না করতে চান, তবে কুড়ি হাজার টাকা বিনিয়োগ করে নার্সারি থেকে পাইকারী মূল্যে আনতে হবে রেডিমেড বনসাই গাছ। ৩০ থেকে ৫০ শতাংশ অধিক মূল্যে বিক্রি করতে পারেন সেগুলি বিক্রি করলে লাভবান হবেন সহজেই।বর্তমানে বাজারে ২০০ টাকা থেকে ২৫০০ টাকা পর্যন্ত দামে বিক্রি করা যায় বনসাই গাছ।

বাড়িতে বনসাই গাছ তৈরি করা যাবে খুব সহজেই। উপকরণ হিসাবে পরিশ্রুত জল, বেলেমাটি, বালি, কাঁচের পাত্র, মার্বেল পাথর, পাতলা তার, স্প্রে বোতল, বেত রাখতে হবে। বনসাই করার জন্য বড় জায়গার প্রয়োজন। বাড়ির ছাদ বা বড় জমি থাকলে হবে। ছোট করে ব্যবসা শুরু করতে পারেন মাত্র পাঁচ হাজার টাকা থেকেই।

শুধুমাত্র তাই নয় সরকার কিন্তু আপনাকে সম্পূর্ণ রকম ভাবে সাহায্য করবেন উৎপন্ন মূল্যের ৬০% দেবে কেন্দ্রীয় সরকার এবং ৪০% দেবে রাজ্যসরকার বিস্তারিত তথ্য জানার জন্য অতি অবশ্যই আপনি আপনার এলাকার নোডাল অফিসার দের সাথে যোগাযোগ করুন।বনসাই ব্যবসার জন্য এক হেক্টর জায়গায় প্রায় ১৫০০ থেকে ২৫০০টি চারাগাছ বসানো যাবে। চার বছরের মাথায় তিন থেকে সাড়ে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button