সিদ্ধার্থের স্মৃতি মন থেকে মুছে ফেলতে পারছেন না শেহনাজ! সোশ্যাল মিডিয়ায লাইভে এসে বললেন তিনি। মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন:বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত এর পর সম্প্রতি জনপ্রিয় টেলি অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার অকালপ্রয়াণ সকলের মনকে নাড়িয়ে দিয়েছে।এখনো পর্যন্ত এই মৃ-ত্যু-র শোক থেকে নিজেদের কাটিয়ে উঠতে পারেননি সিদ্ধার্থের পরিবার এবং ভক্তরা।

তবে সব থেকে বেশি শোকাহত হয়েছেন সিদ্ধার্থের মা এবং তার বিশেষ বান্ধবী শেহনাজ গিল।বিগবসে প্রতিযোগী হিসেবে অংশগ্রহণ করার পর থেকেই শেহনাজের সাথে অভিনেতার সম্পর্ক সকলের মুখে ছিল। ঘনিষ্ঠ মহলের খবর অনুযায়ী, খুব শীঘ্রই চলতি বছরের শেষের দিকে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে চলেছিলেন তারা। কিন্তু সিদ্ধার্থের অকাল প্রয়াণে কার্যত সবকিছুই ধ্বংস হয়ে যেতে বসেছে।

সাধারণত যারা সিদ্ধার্থের বান্ধবী শেহনাজকে সামনাসামনি দেখেছেন তারা সকলেই জানেন তিনি অত্যন্ত প্রাণবন্ত এবং হাসিখুশি একটি মেয়ে। কিন্তু সিদ্ধার্থের মৃ-ত্যু যেন তার এই উচ্ছলতাকে একেবারে নাড়িয়ে দিয়ে গিয়েছে।অভিনেতার মৃত্যুর পর তাঁর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় ক্যামেরার মুখোমুখি হয়েছিলেন তার এই প্রেমিকা। কিন্তু সেখানে তার অবস্থা দেখে যারপরনাই দুঃখ পেয়েছিলেন অনুরাগীরা।অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় উপস্থিত হওয়ার পরেও কোন কথা বলতে পারেননি শেহনাজ।এরপর ধীরে ধীরে নিজেকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে সমস্ত লাইমলাইট থেকে দূরে সরিয়ে নিয়েছেন তিনি।

শেহনাজের পরিবার সূত্রের খবর, এখনো পর্যন্ত সিদ্ধার্থ শুক্লার মৃ-ত্যু ভুলতে পারেননি অভিনেত্রী। যার ফলস্বরুপ মানসিক অবসাদ এর মধ্যে রয়েছেন তিনি।যদিও অভিনেত্রীর শুভাকাঙ্খীরা তাকে খুব শীঘ্রই এই অবস্থা থেকে বের হয়ে যাওয়ার জন্য আশীর্বাদ করেছেন। কিন্তু স্বাভাবিকভাবেই নিজের প্রিয় মানুষকে হারিয়ে ফেলার পর কারোরই মনের অবস্থা ঠিক থাকেনা। সেলিব্রিটি হলেও শেহনাজ একজন রক্ত মাংসের মানুষ।

তাই তার ক্ষেত্রেও এই ঘটনার কোনো রকম ব্যতিক্রম হয়নি।জানিয়ে রাখি কিছুদিন আগে শেহনাজ এর একটি পুরনো ভিডিও ইন্টারনেটে বেশ ভাইরাল হয়েছিল।যেখানে দেখা যাচ্ছিল অভিনেতা সিদ্ধার্থ শুক্লার সাথে নাচ করছেন তিনি। দর্শকেরা এই দম্পতির ভিডিওটিকে বেশ পছন্দ করেছেন। কিন্তু বেশিরভাগ ভক্তরাই ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর কমেন্ট বক্সে অত্যন্ত দুঃখ প্রকাশ করেছেন অভিনেতার অকাল প্রয়াণের কারণে।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button