হালকা শীত পড়লেই বা শীতে গলা খুসখুস, সর্দি কাশি হয়? এই ঘরোয়া টোটকায় দারুণ কাজ

আকাশ বার্তা অনলাইন ডেস্ক – ইতিমধ্যেই পরে গিয়েছে নভেম্বর মাস। আর তার সাথে সাথেই কার্যত রাজ্য জুড়ে শীতের লক্ষণ ফুটে উঠতে শুরু করেছে। মূলত দুর্গা পুজোর পর থেকেই শীতের অনুভূতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এক্ষেত্রে দিনের বেলা চড়া রোদের দেখা পাওয়া গেলেও কার্যত ভোর বেলা ও রাতের দিকে নামছে তাপমাত্রার পারদ আর তার সাথে সাথেই ঠান্ডা ভাব অনুভূত হচ্ছে। আর এই সময়টি বা ওয়েদার চেঞ্জের এই সময়টাতেই মানুষের সতর্ক থাকা প্রয়োজন। কারন শীতের সময় গলা খুসখুস, গলা ব্যথা, সর্দি কাশির মতো সমস্যা গুলির প্রকোপ বাড়ে। আপনি অসতর্ক থাকলে এই ওয়েদার চেঞ্জের সময়েই আপনার ঠান্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।

তবে শীতকালীন এই সমস্যা গুলি থেকে বাঁচার জন্য আপনাকে কোন ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন পড়বে না। হ্যা ঘরোয়া উপায়েও এই অস্বস্তি থেকে মুক্তি পেতে পারেন আপনি।এমনকি সেই উপাদান গুলি প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই থেকে থাকে।
শীতকালীন সমস্যা থেকে ঘরোয়া উপায়ে মুক্তির উপায় -হলুদ – গলার সংক্রমণের জন্য দারুন ফলদায়ক এই হলুদ। যেই জিনিসটি প্রায় সকলের বাড়িতেই থাকে। মূলত হলুদের মধ্যে থাকে অ্যান্টি অক্সিড্যান্ট। মূলত সেই কারনেই গলার সংক্রমন দূর করতে দারুন উপকারী এই হলুদ। এক্ষেত্রে প্রথমে একটি কাপ ভর্তি করে জল নিন এবং ঐ পরিমান জলটি গরম করুন।

এবার ওই গরম জলে হলুদ দিয়ে দিন হাফ চামচ। এক্ষেত্রে মাথায় রাখুন এক কাপ গরম জলের জন্য প্রয়োজন হাফ চামচ হলুদের। এবার ওই গরম জল ও হলুদের মিশ্রনের মধ্যে এক চামচের থেকে সামান্য কম নুন নিয়ে একটি মিশ্রন তৈরী করুন। এবার ওই মিশ্রন টি দিয়েই গার্গেল করুন। অল্পকদিন এই মিশ্রণ দিয়ে গার্গেল করলেই খুব শীঘ্রই গলার সংক্রমন থেকে মুক্তি পাবেন।
মধু – মধুর উপকারিতা সম্পর্কে সকলেই ওয়াকিবহাল। শীতকালে অনেকেই প্রতিদিন এক চামচ ব দুচামচ করে মধু খেয়ে থাকেন। তবে আপনি যদি শীতকালে আপনার গলার সংক্রমন কমাতে চান এবং গলাকে আরাম দিতে চান সেক্ষেত্রে তৈরী করুন মধুর এই মিশ্রন।এক্ষেত্রে এক কাপ গরম জল নিয়ে তার মধ্যে পরিমানমতো মধু মেশান। এবার ওই মিশ্রন টিতেই সামান্য পরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে তা পান করুন। এই মিশ্রণ শীত কালে গলার যত্নের জন্য খুবই উপকারী।

রসুন – মূলত কাঁচা রসুন মানুষের স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই উপকারী। এই রসুনের রয়েছে বহু স্বাস্থ্য গুন। শরীরকে নানা রোগের হাত থেকে বাঁচাতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার। তবে আপনি যদি শীতকালে প্রত্যেকদিন এক কোয়া করে রসুন খেতে পারেন সেক্ষেত্রে শীতকালীন নানান সমস্যার হাত থেকে আপনি মুক্তি পেতে পারেন। এক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে প্রত্যহ ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে খেতে হবে রসুন।

নুন-জল – নুন-জলের উপকারিতা নিয়ে আর কিছুই বলার থাকেনা। কারন ইতিমধ্যেই মানুষ এর উপকারিতা জানার পাশাপাশি এই মিশ্রণ ব্যবহার করে থাকেন। মূলত নুন-জল দিয়ে প্রতিদিন গার্গেল করাও ভালো। গলার নানা সংক্রমন এমনকি শুকনো সর্দি থেকে মানবদেহ কে মুক্তি দিতে নুন-জলের গার্গল এর কোন বিকল্পই নেই। কাজেই শীতকালে প্রত্যহ রাতে এই গার্গেল করতে পারেন। সেক্ষেত্রে গলার সংক্রমন এর হাত থেকে মুক্তি পাবেন। যা শীতকালের স্বাভাবিক সমস্যা।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button