ফর্ম ফিলাপের সময় এই 5 টি ভুল করলেই পাবেন না লক্ষীর ভান্ডারের টাকা! আগে থেকে সতর্ক হোন! রইল বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- অতি অবশ্যই লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্র পূরণ করার আগে সম্পূর্ণ প্রতিবেদনটি পড়ুন কারণ এই প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে এমন কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যে বিষয়গুলি আপনি যদি ভুল করে ফেলেন তাহলে কিন্তু আপনার লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্র বাতিল হতে পারে । মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অনুপ্রেরণায় বিশাল কর্মসূচির আয়োজন হতে চলেছে গোটা রাজ্য জুড়ে ।

এবং এই প্রকল্পের নাম হচ্ছে লক্ষী ভান্ডার প্রকল্প। এই রাজ্যের প্রথম মহিলা রাজ্যের লক্ষ্মী তাই এই ধরনের নামকরণ করা হয়েছে । লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আওতায় সকল সম্প্রদায়ের মানুষেরা অর্থাৎ মহিলারা ৫০০ টাকা এবং হাজার টাকা করে সরকারিভাবে অনুদান পাবে । কিন্তু লক্ষী ভান্ডার প্রকল্পের আবেদন পত্রটি হাতে পাওয়ার পর এই কয়েকটি ভুল করলে আপনার কিন্তু টাকা নাও আসতে পারে । তাই এ ব্যাপারে সচেতন থাকুন আগে থেকে ।

কিন্তু এই আবেদন পত্র পূরণ করতে গিয়ে যে ধরনের সমস্যা গুলোর সম্মুখীন হতে পারেন আপনি সেই সমস্ত সমস্যার সমাধান নিয়ে আজকের এই প্রতিবেদনটি ।

১)আবেদনপত্রটি হাতে পাওয়ার পর প্রথমে আপনার সামনে ভেসে উঠবে দুয়ারে সরকার ক্যাম্প রেজিস্ট্রেশন নাম্বার । সেখানে আপনি কি পূরণ করবেন? সে অর্থে আপনাকে জানিয়ে রাখি যে সেটি শুধুমাত্র সরকারি আধিকারিকদের জন্য ।অর্থাৎ আপনি যখন আবেদনপত্রটি জমা দেবেন তখন অতি অবশ্যই আপনাকে কি রেজিস্ট্রেশন নাম্বার দেওয়া হবে । যদি কোন কারণে আপনাকে রেজিস্ট্রেশন নাম্বার না দেওয়া হয় তাহলে আপনি তৎক্ষণাৎ সেখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি আধিকারিকের সাথে যোগাযোগ করুন এই রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ছাড়া কিন্তু এই আবেদনপত্রটি গ্রহণযোগ্য হবে না ।

২)দ্বিতীয় যে বিষয়টি যে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর নাম্বার । যদি কোন কারণে আপনার স্বাস্থ্য অধিকার না থেকে থাকে তাহলে অতি অবশ্যই আপনাকে দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে সরকারি আধিকারিকের সাথে কথা বলতে হবে ।তারা যদি আবেদনপত্রটি জমা নিয়ে নেয় তাহলে ভালো কথা ।

৩) আপনাকে যে ব্যাংক একাউন্ট প্রদান করতে হবে সেই ব্যাংক অ্যাকাউন্ট অতি অবশ্যই আধার কার্ডের সাথে লিংক থাকতে হবে এবার আপনি কিভাবে বুঝবেন যে আপনার ব্যাংক কার্ডের সাথে আধার কার্ড লিঙ্ক রয়েছে কি না । সেটা আপনি বাড়িতে বসেই জানতে পারে যাবেন ।

৪)এরপর যে বিষয়টি সমস্যা আনবে সেটি হল ব্যাংক একাউন্ট এক্ষেত্রে আপনি জয়েন্ট একাউন্ট দেবেন নাকি সিঙ্গেল একাউন্ট দেবেন সে বিষয়ে চিন্তিত । তবে সম্প্রতি রাজ্য সরকারের তরফ থেকে একটি নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যে জয়েন্ট একাউন্ট দেওয়া যেতে পারে কি না সে ব্যাপারে বিবেচনা করবে তারা এবং এই সিদ্ধান্ত আপনি জানতে পারবেন দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে সরকারি আধিকারিকদের কাছ থেকে ।। সব থেকে ভালো হবে যদি আপনি সিঙ্গেল একাউন্ট। দেন ।সাথে অবশ্যই আপনি নিজের কাছে রেখে দিন আধার কার্ডের জেরক্স ।।ভোটার কার্ড এর জেরক্স বেশকিছু পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি ব্যাংকের পাস বইয়ের জেরক্স এবং স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জেরক্স.

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button