‘আমাকে ক্ষমা করে দিন’, মদন মিত্রের সঙ্গে নাচায় লাইভ ভিডিও করে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইলেন শ্রাবন্তী, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন:প্রথম থেকেই বাংলা চলচ্চিত্র জগতে বিতর্কিত অভিনেত্রী হিসেবে পরিচিত শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। অভিনয় জগতে অত্যন্ত সাফল্য লাভ করলেও ব্যক্তিগত বিভিন্ন কর্মকাণ্ড নিয়ে সবসময় শিরোনামে থাকেন এই নায়িকা। প্রধানত বিবাহিত জীবনকে নিয়েই শ্রাবন্তী চর্চায় থেকেছেন। কারণ মাত্র 18 বছর বয়সে পরিচালক রাজীব কুমার বিশ্বাসকে বিয়ে করেছিলেন তিনি।

এরপর আচমকাই ছেলে ঝিনুকের জন্মের পর পরকীয়া সম্পর্কের অভিযোগে প্রথম বিয়ের বিচ্ছেদ হয়ে যায় শ্রাবন্তীর। এমতাবস্থায় আবারো কিছুদিনের মধ্যেই উঠতি মডেল কৃষন ব্রজকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু এই সম্পর্ককেও তিনি বেশিদিন টিকিয়ে রাখতে পারেননি। মন দেওয়া-নেওয়ার ক্ষেত্রে খুব বেশি দেরি করেননা অভিনেত্রী শ্রাবন্তি এটা হয়তো সকলেই জানেন।

তাই দ্বিতীয় বিয়ের বিচ্ছেদের মাত্র বছর দুয়েকের মধ্যেই 2019 সালে তৃতীয় বার রোশন সিং কে বিয়ে করেন নায়িকা।একেবারেই গোপনীয়ভাবে পাঞ্জাবে গিয়ে এই বিয়ে সম্পন্ন করেছিলেন তিনি। পরবর্তী সময়ে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেদের ছবি শেয়ার করে তিনি সম্পর্কের কথা জানান। রোশনের সঙ্গে অভিনেত্রীর বেশ আনন্দেই দিন কাটছিল। কিন্তু আচমকাই তাদের সম্পর্কে ভা-ঙ্গ-ন দেখা দেয়।

হঠাৎ করেই গত বছর পুজোর সময় থেকে জানা যায় এই দম্পতি আলাদা থাকছেন। বাইপাসের ধারে নিজের ফ্ল্যাটে ছেলে অভিমুন্য কে নিয়ে একাই রয়েছেন শ্রাবন্তী। অপরদিকে রোশন ফিরে গিয়েছেন নিজেদের পারিবারিক ফ্ল্যাটে। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে নিজেদের ছবি ডিলিট করার পাশাপাশি একে অপরকে আনফলো করেছেন এই জনপ্রিয় তারকা দম্পতি।মাঝখানে বিবাহবিচ্ছেদের জল্পনা সামনে আসলেও গুজব শোনা যায় যে শ্রাবন্তী নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার কারণে আপাতত এই বিবাহবিচ্ছেদ সম্পন্ন করা সম্ভব নয়।

বিয়ে ভাঙ্গা নিয়ে শ্রাবন্তী কোন প্রতিক্রিয়া না জানালেও তৃতীয় স্বামী রোশন সিং বলেন, শ্রাবন্তীর সঙ্গে অতীতে তার একটি সম্পর্ক ছিল। এই নামের একটি মেয়েকে তিনি বিয়ে করেছিলেন ঠিকই কিন্তু এখন তার চেহারাও তার ঠিক ভাবে মনে নেই। এই সাক্ষাৎকার এর পরেই জল্পনা আরো চরমে ওঠে।সম্প্রতি নেটদুনিয়ায় শ্রাবন্তীর একটি ভিডিও ভাইরাল হতে দেখা গিয়েছে।

যে ভিডিওতে সকলের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন অভিনেত্রী।হয়তো আপনার মনেও প্রশ্ন আসছে হঠাৎ করে এমন কি ঘটলো যে সকলের কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হলেন শ্রাবন্তী? প্রসঙ্গত নির্বাচনী প্রচার চলাকালীন সময়ে দোলযাত্রা উৎসবে তৃণমূল কংগ্রেসের কামারহাটির প্রার্থী মদন মিত্রের সাথে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেছিলেন তিনি।

এই অনুষ্ঠানে শুধু মাত্র শ্রাবন্তী নয় টলিউডের অন্যান্য অভিনেত্রী তথা বিজেপি প্রার্থী ছিলেন। যার মধ্যে নেওয়া যায় পায়েল সরকার এবং তনুশ্রী চক্রবর্তীর নাম। বেহালা পশ্চিম কেন্দ্র থেকে বিজেপির প্রার্থী হয়েছিলেন শ্রাবন্তী। এই পরিস্থিতিতে আচমকাই দোলযাত্রার দিন তৃণমূল কর্মকর্তাদের সাথে এই তিন তারকা হোলি উৎসবে মগ্ন হয়ে ওঠেন।

এই উৎসবের নানা ধরনের ভিডিও সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছিল।বিশেষত চলতি বছরে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে কাঁটায় কাঁটায় টক্কর থাকার কারণে এভাবে প্রার্থীদের বিপরীত রাজনৈতিক দলের সাথে উৎসব পালন অনেকেই মেনে নিতে পারেননি। যার ফলে কটাক্ষের মুখে পড়তে হয়েছিল শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় কে।

শেষ পর্যন্ত শ্রাবন্তী একটি ভিডিও প্রকাশ করে সকলের কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হন। সেই ভাইরাল ভিডিও তে শ্রাবন্তীকে বলতে শোনা যায়,”দোলযাত্রা সকলের উৎসব। এটি কোনো রকম রাজনৈতিক দলের অনুষ্ঠান নয়। সকল ধর্মের সকল মানুষেরাই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে পারে। আমি একজন মানুষ হিসেবে সেখানে তৃণমূল কর্মকর্তাদের সাথে অংশগ্রহণ করেছিলাম।

আমি সবসময় বেহালা পশ্চিমের মানুষের পাশে রয়েছি। এখনো পর্যন্ত আমাকে বেহালা পশ্চিম আসনের মানুষেরা যেভাবে ভালোবাসা দিয়েছেন তা অভিভূত করে ফেলেছে। আমি আশা করব যেন আপনাদের ভালোবাসা নিয়েই আমি এগিয়ে যেতে পারি। কিন্তু যদি এই সময়ে দোলযাত্রার সেই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার কারণে আমার উচ্চপদস্থ কার্যকর্তারা বা ভারতীয় জনতা পার্টির নেতারা মনঃক্ষুন্ন হয়ে থাকেন তাহলে আমি সকলের কাছে ক্ষমা চাইছি”।

বর্তমানে এই ভিডিওটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেট দুনিয়ায়।বলে রাখি ভোটের ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পর দেখা গিয়েছিল প্রথম দিকে এগিয়ে থাকলেও পরবর্তীতে বিপুল ভোটে তৃণমূল প্রার্থী তথা মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় এর কাছে প্রায় 50 হাজারেরও বেশি ভোটে পরাজিত হয়েছিলেন শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button