একঘেয়েমি কাটাতে চটপট শিখে নিন দারুন সুস্বাদু 6 ধরণের রেসিপি! রইল ভিডিও সহ বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন :- দুপুরের খাবার হোক বা রাত্রের খাবার । যদি কখনো বাড়িতে কোনো রকম কোনো কিছু করার না থাকে তাহলে কিন্তু এই ধরনের রেসিপি গুলো দিয়ে আপনি সেই দিনের মতন ম্যানেজ দিতে পারেন । বিভিন্ন ধরনের ভর্তা তৈরি হয় এবং অর্থ গুলো খেতে অত্যন্ত সুস্বাদু হয় । বিভিন্ন রেসিপি রয়েছে ভর্তা তৈরি করার । এবং রেসিপি অনুযায়ী বিভিন্ন বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে । কিন্তু আজকের এই প্রতিবেদন আপনাদেরকে বেশ কয়েকটি অভিনব কায়দায় তৈরি করা ভর্তার কথা বলতে চলেছি আসুন জেনে নেই কিভাবে তৈরি করা যায় ।

১)ভর্তা অনেক ধরনের হয়ে থাকে বিভিন্ন রকমের স্বাদ অনুযায়ী হয় তবে প্রথমে যে রেসিপির কথা বলতে চলেছি সেটি হচ্ছে টাকি মাছের ভর্তা প্রথমে একটি পাত্রে কিছুটা পরিমান জল নিলেন তার মধ্যে দিয়ে দিলেন পরিমাণমতো টাকি মাছ বা যেকোনো ধরনের মাছের পাতার মধ্যে দিয়ে দিলেন একবারটি কুচি এবং বেশ কিছুটা কাঁচা লঙ্কা আগেই বলে রাখি এই ভয়ে যদি ঝাল না হয় তাহলে কিন্তু খেতে খুব একটা ভালো লাগবে না এরপর তার মধ্যে দিয়ে দেবেন রসুন পেঁয়াজ এবং ধনেপাতা সমস্ত উপকরণ গুলি দেওয়ার পর দিবেন তার ওপর দুই চামচ সয়াবিন তেল এরপর বেশ ভাল করে ভেজে নিতে হবে সেই সমস্ত উপকরণ গুলিকে তারপর একটি ব্লেন্ডারে সমস্ত উপকরণ গুলি ব্লেন্ড করে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে টাকি মাছের ভর্তা ।।

২) শুটকি মাছের ভর্তা এটি করার জন্য প্রথমে আপনাকে পাত্রে কিছু পরিমাণ শুকনো লঙ্কা এবং রসুন ভাল করে ভেজে নিতে হবে তারপর সেটি কি অন্য একটি পাত্রে তুলে রাখতে হবে এরপর আগে থেকে যে শুকনো শুটকি মাছ পাওয়া যায় সেগুলি কিনে নিয়ে আসতে হবে এবং সেই পাত্রের দিয়ে ভাল করে ভেজে নিতে হবে তার সাথে অবশ্যই ভেজে নিতে হবে কিছুটা পরিমাণ রসুন এর সমস্ত উপকরণ গুলি কে বেশ ভালো করে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন তৈরি হয়ে যাবে শুটকি মাছের ভর্তা ।

৩) প্রথমে কুমড়োর পাতাগুলি ছোট ছোট অংশের কেটে ভাল করে ধুয়ে নিতে হবে ।তারপর একটি পাত্রে কিছুটা পরিমাণ সরষের তেল দিতে হবে ।তার মধ্যে দিতে হবে কুমড়োর এই পাতাগুলি ।তারপর তার মধ্যে যোগ করে দিতে হবে এক চামচ নুন এবং তিন থেকে চারটি রসুন । এর পর ঢাকনা দিয়ে প্রায় পাঁচ থেকে সাত মিনিটের জন্য কুমড়ো পাতা গুলিকে সেদ্ধ হতে দিতে হবে ।কুমড়ার পাতা সেদ্ধ হয়ে গেলে সেটিকে অন্য একটি পাত্রে নামিয়ে ঠান্ডা করে নিতে হবে । এবং তারপর ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিতে হবে বা ভালো করে বেটে নিতে হবে । এরপর একটি পাত্রে দুইটি শুকনো লঙ্কা নিতে হবে এবং তারমধ্যে দিতে হবে আগে থেকে ভেজে রাখা পেঁয়াজ ।পেঁয়াজ এবং লঙ্কা কে ভালো করে মিশে নিতে হবে । তারপর তার মধ্যে যোগ করে দিতে হবে আগে থেকে ভেজে রাখা কুমড়ো পাতা ।

৪) প্রথমে বরবটি গুলোকে ছোট ছোট অংশ কেটে নিতে হবে । তারপর গরম জলে প্রায় ১০ মিনিটের মতন ভালো করে সেদ্ধ করে অন্য একটি পাত্রে তুলে রাখতে হবে । এরপর কড়াই মধ্যে কিছুটা পরিমাণ সরষের তেল দিতে হবে এবং তার মধ্যে শুকনো লঙ্কা । বেশ ভাল করে ভেজে অন্য একটি পাত্রে তুলে রাখতে হবে । এবার সেই তেল এই দিতে হবে আগে থেকে কেটে রাখা পেঁয়াজ আদা এবং কাঁচা লঙ্কা পেঁয়াজ রসুন এবং কাঁচা লঙ্কা ।

`সেগুলি বেশ ভালো করে লাল লাল করে ভেজে নেওয়ার পর সেটিকে তুলে রাখতে হবে অন্য একটি পাত্রে । এরপর যে বরবটি আমরা সেদ্ধ করেছিলাম সেটাকে ব্লেন্ডারে ভালো করে ব্লেন্ড করে একটি পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে । তারপর রসুন ভাজা পেঁয়াজ ভাজা এবং কাঁচালঙ্কা গুলিকে ব্লেন্ডারে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিতে হবে এবং তার সাথে সাথে ব্লেন্ড করে নিতে হবে শুকনো লঙ্কা কেউ । এরপর বরবটির সাথে এই মিশ্রণটি ভালো করে মিশিয়ে নিলেই তৈরি হয়ে যাবে বরবটির ভর্তা ।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button