প্রধানমন্ত্রীর নতুন ই-শ্রম কার্ডে প্রত্যেক পরিবার পাবে 6,000 টাকা করে! না করে থাকলে আজকেই করুন! রইল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন :-দেশের এই আর্থিক পরিস্থিতিতে সরকার কর্তৃক বিভিন্ন সময় নতুন নতুন নিয়ম চালু করা হয়েছে যাতে নিত্যদিনের সাধারণ মানুষের কোন অসুবিধা না হয়।সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকারের তরফ থেকে অসংরক্ষিত শ্রমিকদের একটি ডাটাবেস তৈরি করার জন্য নতুন একটি প্রকল্প জারি করা হয়েছে যার নাম ই-শ্রম কার্ড বা লেবার কার্ড । এতে একাধিক সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছে সমগ্র ভারতবাসীকে। কিন্তু তার মধ্যে একটি বিশেষ সুবিধা হলো প্রধানমন্ত্রী মান ধন যোজনা। এখানে আপনি প্রতি মাসে 3000 টাকা করে পেনশন পেতে পারেন।

এই পেনশন স্কিম এ নিজেকে তালিকাভুক্ত করার জন্য বেশ কয়েকটি আবেদন পদ্ধতি রয়েছে যা এই মুহূর্তে আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চলেছি । এর জন্য একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে বাড়ির কাছের কোনও কমন সার্ভিস সেন্টারে যেতে হবে। সেটা না থাকলে এটি এলআইসি বা শ্রম মন্ত্রকের ওয়েবসাইটে গিয়ে দেখতে হবে। এছাড়া এলআইসি অফিস থেকেও এই অ্যাকাউন্ট খোলা যেতে পারে।

এই প্রকল্পের আওতায় আসতে গেলে আপনার বয়স অবশ্যই 18 থেকে 40 বছরের মধ্যে হতে হবে এবং বার্ষিক মাসিক আয় 15 হাজার বা তার নিচে হতে হবে তাহলেই মিলবে এই সুবিধা ।এই প্রকল্পের সুবিধা পেতে গেলে অতি অবশ্যই আপনাকে ভারতের নাগরিক হতে হবে ।
পাশাপাশি কোনরকম সরকারি সাহায্য যদি আপনি পেয়ে থাকেন তাহলে কিন্তু এর জন্য আপনি আবেদন করতে পারবেন না।

এই প্রকল্প আবেদন করার পর আপনি প্রতিমাসে 3000 করে পেনশন পাবেন যদি কোনো কারণে বেনিফিসারী মৃত্যু হয় তাহলে তার অর্ধেক টাকা তার পরিবারের বাকি সদস্যদের দেওয়া হবে এবং যদি স্বামী ও স্ত্রী দুজনে একই প্রকল্পের আওতায় নিজেদের অন্তর্ভুক্ত করে তারা প্রতি মাসে 6000 টাকা করে তারা পেনশন পাবে।

এই প্রকল্পের সুবিধা পেতে প্রথমে আপনাকে প্রতিমাসে 55 টাকা করে জমা করতে হবে এবং 18 বছর বয়সে যদি কোন ব্যক্তি এই প্রকল্পের সুযোগ-সুবিধা নিতে চান তাহলে প্রতিদিন তাকে 2 টাকা করে সঞ্চয় করতে হবে তাহলেই বছরে 36000 টাকা পেনশন পাবে ল60 বছরের পর।আবার 40 বছর বয়সে কোন ব্যক্তি যদি এই সুযোগ সুবিধা নিতে চান তাহলে অতি অবশ্যই তাকে প্রতি মাসে 200 টাকা করে সঞ্চয় করতে হবে। আমাদের দেশে প্রায় কয়েক কোটি শ্রমিক রয়েছেন যারা আগামী দিনে এই প্রকল্পের আওতায় সে সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করতে পারবেন।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button