রেলগেট পড়ে যাওয়ার পরেও রেললাইনের মধ্যে আটকে গেল চারচাকা গাড়ি! ট্রেন আসতেই ঘটলো চরম বিপত্তি! মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও।

নিজস্ব প্রতিবেদন:-পৃথিবীর প্রতিটি প্রান্তরের ট্রেনের ব্যবস্থা রয়েছে । ভারতবর্ষে রয়েছে তার বিপুল পরিষেবা এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যাতায়াতের জন্য বা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে যাতায়াতের জন্য সহজলভ্য ভাবে আমরা ট্রেনের ব্যবহার করে থাকি । যেহেতু ট্রেন অন্যান্য যানবাহনে তুলনায় অনেকটা সহজলভ্য এবং পরিষেবা পাওয়া খুব সহজ তাই সাধারণ মানুষেরা ট্রেনের পরিষেবা নিতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে ।

কিন্তু আমরা এমনটা জানি যে ট্রেন এর লাইন সাধারণত সড়ক পথ থেকে অনেকটা দূরে হয় । কিন্তু এমন অনেক জায়গা রয়েছে যেখানে সড়কপথ এবং রেললাইন একে অপরকে ক্রস করেছে । সেই জায়গা কে দুর্ঘটনা প্রবল এলাকা বলে চিহ্নিত করা হয় ।

সোশ্যাল মিডিয়াতে এই সমস্ত ঘটনা গুলো প্রতিনিয়ত আমাদের মোবাইল স্ক্রিনে ভেসে ওঠে বলেই হয়তো আমরা জানতে পারি আগেকার যুগে মানুষ বিভিন্ন খবর পাওয়ার জন্য টিভি র উপর ভরসা করে থাকত । কিন্তু বর্তমান যুগে যেহেতু এখন প্রত্যেকের হাতে স্মার্টফোন রয়েছে এবং ইন্টারনেট পরিষেবা রয়েছে ।

তাই এই দুইটি কে কাজে লাগিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার করতে শিখে গেছে তারা । প্রতিনিয়ত এমন কিছু ঘটনা তুলে ধরে আমাদের সামনে যার ফলে প্রতিনিয়ত বাড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয়তা ও ব্যবহার তবে এই ঘটনা সচেতনতার অভাব ছাড়া কোন কিছুই বলা যেতে পারে না ।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে একটি ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে সেখানে দেখা যাচ্ছে যে একটি রেল লাইন সড়কপথে উপর দিয়ে পেরিয়ে গেছে । দুই দিকই রয়েছে ক্রসিং গেট। ক্রসিং ফেলে দেওয়ার পরও কোনো কারণে একটি চারচাকা গাড়ি আটকে যায় দুটি রেল লাইনের মধ্যবর্তী জায়গাতে ।

কোনরকম ভাবে রেল কর্মীদের সহায়তায় গাড়িটিকে কিছুটা সম্ভব সরানো গেলেও সম্পূর্ণ রকম ভাবে সরানো সম্ভব হয়নি কারন ততক্ষনে অপর দিক থেকে চলে এসে দুরন্ত গতিতে একটি এক্সপ্রেস ট্রেন। । যদিও রেলকর্মীরা ট্রেনকে আটকানোর চেষ্টা করেছিল লাল পতাকা দিয়ে কিন্তু কোনো রকম কোনো কাজে আসেনি । যার ফলে সিসিটিভি ক্যামেরাতে ধরা পড়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে যে ট্রেনটি সজোরে ধাক্কা মারে সেই গাড়িটিকে । যদিও হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি । কিন্তু এই ধরনের ঘটনালাইনচ্যুত হয়ে মারা যেতে পারত হাজার হাজার যাত্রী ।।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button