সকালে খালি পেটে জিরা ভেজানো জল খেলে কী হয় জানেন? জানুন কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

আকাশ বার্তা অনলাইন ডেস্ক – প্রতিটি ভারতীয় নাগরিকের কাছেই জিরা খুবই পরিচিত। এর প্রধান কারন এদেশের প্রায় সমস্ত রান্নাতেই এই জিরা মশলা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। রান্নায় জিরা দেওয়ার মূল উদ্দেশ্য খাবারের স্বাদ বৃদ্ধি করা। জিরা খাবারে দিলে জিরার গুনে খাবার অনেকটাই সুস্বাদু হয়। কাজেই যে কোন জিরা দেওয়া খাবারই খুব সহজেই আলাদা করা যায় অন্য খাবারের থেকে। তবে আপনিকি জানেন এই জিরার খাদ্যে স্বাদ বাড়ানো ছাড়াও আরো বেশ কিছু গুন রয়েছে? জিরা মানুষের শরীরস্বাস্থ্যর উন্নতি ঘটাতেও দারুন উপকারী।

জিরা মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী কেন ? জিরা মানুষের শরীরের জন্য বিশেষ উপকারী কারন এর মধ্যেকার কিছু বিশেষ গুণাগুণের জন্য। মূলত জিরার মধ্যে থাকে তামা, আয়রন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি, জিঙ্ক এবং পটাশিয়ামের মতো শরীরের পক্ষে উপকারী জিনিস গুলো। আর এর ফলেই জিরার জল মানব শরীরের বেশ কিছু রোগ কমিয়ে দিতে এবং শরীর স্বাস্থ্য সবল রাখতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

কোন কোন শারীরিক সমস্যার ক্ষেত্রে জিরা উপকারী – বদহজম দূর করে – বর্তমান সময়ে মানুষ যতই স্ট্রিট ফুডের প্রতি বেশী আকৃষ্ট হচ্ছে ততই বৃদ্ধি পাচ্ছে বদহজমের সমস্যা। বর্তমানে বেশীর ভাগ মানুষই এই সমস্যায় ভুগছেন। মূলত অন্ত্রে গ্যাস জমে এই সমস্যার সৃষ্টি করে। যার ফলেই পেট ব্যাথা,পেট ভার হওয়া, পেট শক্ত হয়ে যাওয়ার মতো নানান সমস্যা দেখা দেয়। কাজেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে হলে আপনি একগ্লাস জলে সামান্য পরিমাণ জিরা ভালো ভাবে মিশিয়ে সেই জল পান করুন। খুব শীঘ্রই মুক্তি পাবেন বদ হজম এর সমস্যা থেকে।

● ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে – অনেকেই ডায়াবেটিস এর সমস্যায় ভোগেন। এক্ষেত্রে এই সমস্যায় জর্জরিত ব্যক্তিরা যদি প্রত্যহ সকালে খালি পেটে জিরা জল পান করতে পারেন সেক্ষেত্রে আপনি খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারেন ডায়াবেটিস থেকে। মূলত এই জিরা জল রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করার পাশাপাশি ইনসুলিন উৎপাদনকেও উদ্দীপিত করে। ফলে জিরা জল খেতে থাকলে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই আপনি মুক্তি পাবেন ডায়াবেটিস এর সমস্যা থেকে।

● রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন করে – শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে জিরা জল বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করে থাকে। এর প্রধান কারন জিরা জলের মধ্যে থাকা শরীরের পক্ষে উপকারী উপাদান গুলি। এই জিরা জলে শরীরের জন্য উপকারী পটাশিয়াম থাকে। পাশাপাশি নুনের ক্ষতিকারক প্রভাব গুলি কাটাতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে এই জিরা জল। যার ফলে মানবশরীরে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে।

● ওজন কমায় – প্রত্যহ সকালে খালি পেটে জিরার জল পান করলে নানান সমস্যার হাত থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এর মধ্যে অন্যতম হলো শরীরের ওজন হ্রাস পায়। মূলত জিরার জল মানবদেহের পাচনতন্ত্র ঠিক রাখতে দারুন উপকারী। আর এর ফলেই যেমন বদহজম থেকে মানুষ মুক্তি পায় ঠিক তেমনই শরীর থেকে বেরিয়ে যায় টক্সিন ও। আর স্বাভাবিক ভাবেই পাচনতন্ত্র ঠিক থাকার ফলে খুব সহজেই শরীর থেকে মেদ ঝরে যায় যা শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে।

● রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি – জিরার সবথেকে ভালো গুন হলো এর মধ্যে থাকে পটাশিয়াম, আয়রন এবং ফাইবার। আসলে এদের থেকেই জিরার উৎস। কাজেই মানবদেহের দরকারি উপাদান গুলি জিরার মধ্যে বর্তমান থাকায় এটি মানবদেহের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই কারনেই প্রত্যহ জিরার জল খেলে যেমন নানান রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায় ঠিক তেমনই শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে তোলে এই জিরার জল।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button