আপনার কি ব্যাঙ্কে প্রধানমন্ত্রী জনধন একাউন্ট খোলা আছে? তাহলেই পেয়ে যাবেন 1.30 লক্ষ টাকার সুবিধা! জানুন কিভাবে!

নিজস্ব প্রতিবেদন :-2014 সালের পর থেকে নরেন্দ্র মোদী ও কেন্দ্রীয় সরকারের তত্ত্বাবধানে দেশে অনেক জনহিতকর কাজ হয়েছে । এমন অনেক জায়গা রয়েছে যেগুলোতে ভারত বর্ষ অন্যান্য দেশের তুলনায় পিছিয়ে ছিল সেই সমস্ত দিক দিয়ে ভারতবর্ষে এখন বিশ্বসেরা। তার পাশাপাশি আত্মরক্ষা জন্য এই মুহূর্তে সর্বশ্রেষ্ঠ বিরাজ করছে ভারত বর্ষ ।

কাজেই জনহিতকর কাজ গুলি অত্যন্ত প্রশংসনীয় এবং জনমনে প্রভাব শালী এমনটা বলা যেতে পারে ।প্রধানমন্ত্রীর এই প্রকল্পের আর্থিক সহায়তা হয়েছে অনেকের এমনকি ১০ বছরের উর্ধ্বে যে কেউ এই প্রকল্পের আওতায় আসতে পারে । এই সমস্ত ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট গুলি জিরো ব্যালেন্সে খোলা হয়ে থাকে ।

প্রধানমন্ত্রী জন ধন একাউন্ট খুলতে গেলে গ্রাহকদের ভোটার আইডি কার্ড, আধার কার্ড, প্যান কার্ড, ড্রাইভিং লাইসেন্স, পাসপোর্ট ইত্যাদি একাধিক গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট জমা দিতে হয় ব্যাঙ্কে।আপনার যদি কোনো সরকারি বা বেসরকারি ব্যাংকে অ্যাকাউন্ট থেকে থাকে এবং সেই একাউন্টকে আপনি প্রধানমন্ত্রী জনধন প্রকল্পের আওতায় আনতে চান তাহলে খুব সহজে সেটি করে ফেলতে পারবেন ।

এবং এই একাউন্টে বিশেষ একটি সুবিধা হচ্ছে যে এখানে টাকা রাখতে হবে এমন কোনো বাধ্যবাধকতা নেই ।অর্থাৎ টাকা না রাখলেও কোনো রকম কোনো অতিরিক্ত মূল্য ব্যাংক কর্তৃপক্ষ কাটা কাটবেনা ।তার পাশাপাশি অন্যান্য ব্যাংকের একাউন্টে যে পরিমাণ সুদ আপনি পেতেন সেই পরিমাণ সুদ পাবেন এই প্রকল্পের একাউন্টে ।

প্রধানমন্ত্রীর জন ধন যোজনার যারা গ্রাহক হবেন তারা তাদের অ্যাকাউন্টে ১.৩ লক্ষ্য টাকার লাভ পাবেন। এই অ্যাকাউন্টের গ্রাহকদের ১,০০,০০০ টাকা দুর্ঘটনা বিমার জন্য এবং ৩০,০০০ টাকা জেনারেল ইনস্যুরেন্স দেওয়া হয়ে থাকে। এই যোজনার যেকোনো ধরনের গ্রাহকরা এই সুবিধা পাবেন। কোনরকম আহত হলে 30 হাজার টাকা এবং দুর্ঘটনাতে মারা গেলে 1 লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।

এই অ্যাকাউন্টে গ্রাহকরা 10 হাজার টাকা পর্যন্ত ওভারড্রাফট এর পরিষেবা পাবেন । গ্রাহকরা এই অ্যাকাউন্ট খোলার পর ক্যাশ তোলা এবং কেনাকাটা করার জন্য রূপে কার্ড এর পরিষেবা পেতে পারবেন। ‌এছাড়াও গ্রাহকরা ইন্টারনেট ব্যাংকিং এবং বিনামূল্যে মোবাইল ব্যাংকিং এর পরিষেবা পেতে পারবেন।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button