নদীর ধারে বড় রাজ খরগোশ ডিম দিতেই পিছন থেকে প্রতিটা ডিম নিয়ে পা’লিয়ে গেলেন যুবতী, ভাইরাল ভিডিও!

নিজস্ব প্রতিবেদন:আমাদের মানুষদের জগত সাধারণত পশুপাখিদের জগতের থেকে অনেকটাই আলাদা হয়।পশুপাখিদের প্রতিনিয়ত বিভিন্ন খাদ্য সংগ্রহের উপর ভিত্তি করে বেঁচে থাকতে হয়।যদিও গৃহপালিত পশু পাখিদের ক্ষেত্রে ব্যাপারটা কিছুটা আলাদা।যাইহোক বাস্তুতন্ত্রের নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি প্রাণীর মধ্যেই ভারসাম্য বজায় রাখা বিশেষ প্রয়োজন।

তাই সর্বদা ল-ড়া-ইয়ে-র মাধ্যমে প্রতিটি প্রাণীকে পৃথিবীতে টিকে থাকতে হয়।সোশ্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন ভাইরাল ভিডিওর মধ্যে আমরা এই ধরনের প্রতিকূলতার সাথে ল-ড়া-ই করার অনেক ভিডিও এর আগেও দেখতে পেয়েছি।যেমন সম্প্রতি নেটদুনিয়ায় একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে যা দেখে অভিভূত হয়ে পড়েছেন নেট নাগরিকরা।

তুমুল ভাইরাল এই ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে,একটি জঙ্গলাকীর্ণ জায়গায় মাটির মধ্যে পরপর কয়েক গুলি খরগোশ ঘাস খাচ্ছে।এক স্থানীয় যুবতী খাবার সংগ্রহ করতে এসে সেই খরগোশ গুলিকে দেখতে পায়।মনে করা হচ্ছে, পশুপাখিদের সাথে আলাদাই সম্পর্ক রয়েছে সেই যুবতীর। খরগোশ গুলিকে দেখামাত্র অত্যন্ত খুশি হয় সেই যুবতী। ধীরে ধীরে প্রত্যেকটি খরগোশকে সঙ্গে থাকা ঝুড়ির মধ্যে তুলে নেয় সে। এরপর আচমকাই জঙ্গলের অন্য জায়গায় পৌঁছলে পরপর বেশ কয়েকটি হাঁসের ডিম চোখে পড়ে যুবতীর।

এরপর যুবতী যে কর্মকাণ্ড করেন তা একেবারেই ভাবতে পারেননি দর্শকরা। খরগোশের পাশাপাশি সেই ঝুড়ির মধ্যে সবকটি ডিম তুলে নিতে দেখা যায় যুবতীকে। এরপর ভিডিওর একেবারে শেষ অংশে দেখা যায় ওই ডিমগুলো এবং খরগোশ নিয়ে নিজের বাড়িতে পৌঁছে যান যুবতী। এবং সেখানে খরগোশ গুলিকে একটি ছোট্ট ঘরের মধ্যে যত্ন সহকারে রেখে খাবার খেতে দিয়ে রান্নার তোড়জোড় করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন ওই মেয়েটি।

দেখা যায় সংগৃহীত সবকটি হাঁসের ডিমই সিদ্ধ করে তার পালিত কুকুরদের খেতে দেন তিনি।এত জটিলতার মাধ্যমে খাবার সংগ্রহ করার পরেও সকল পোষ্যদের সাথে সেই খাবার ভাগ করে নিতে ভোলেননি যুবতী। প্রসঙ্গত সকলের সাথেই বসে সেই যুবতী একসাথে খাবার খান।

এই ভিডিওটি দেখার মাধ্যমে আমরা খুব সহজেই পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের জীবনযাত্রার কঠিনতাসম্পর্কে ধারণা লাভ করতে পারি। সব মানুষের জীবনযাত্রা কখনোই সহজ হতে পারে না। প্রত্যেকটি মানুষের জীবনযাত্রাই আলাদা ধরনের হয়। যাইহোক চাইলে আপনারাও এই ভাইরাল ভিডিওটি দেখে আসতে পারেন। দর্শকদের সুবিধার্থে ভিডিওটি প্রতিবেদনের সাথেই সংযুক্তিকরণ ঘটানো হলো।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button