সুশান্তের মৃ-ত্যু-র এত দিন পরে আবার তদন্তে বেরিয়ে এলো চা-ঞ্চ-ল্যকর তথ্য! NCB -র হাতে গ্রে-ফ-তার হলেন ঘনিষ্ঠ বন্ধু! জানুন বিস্তারিত।

নিজস্ব প্রতিবেদন:ইতিমধ্যেই জনপ্রিয় অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃ-ত্যু-র প্রায় বছর খানেক সময় অ-তিক্রা-ন্ত হয়ে গিয়েছে। এখনো পর্যন্ত তার মৃ-ত্যু রহস্যের কোন সমাধান করতে পারেননি গোয়েন্দারা। ক্রমাগত ত-দ-ন্ত চালানোর পর সম্প্রতি এই ঘটনায় নতুন মোড় সামনে এলো। উল্লেখ্য গত বছর 14 ই জুন নিজের অ্যাপার্টমেন্টে ঝুলন্ত অবস্থায় সুশান্তের দেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। এরপর ক্রমাগত তার মৃত্যু খুন না আত্মহত্যা নিয়ে জল্পনা চলতে থাকে। যদিও পোস্টমর্টেম রিপোর্ট থেকে খুন সম্পর্কে বিশেষ কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। জানা যায় আত্মহত্যা’ই করেছিলেন অভিনেতা।

ঘটনার প্রায় মাস খানেক এর বেশি সময় পর বিহারের রাজিব নগর থানায় সুশান্তের তৎকালীন প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে সুশান্তকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়া ,আর্থিক প্রতারণা সহ একাধিক অভিযোগ দায়ের করেন সুশান্তের বাবাকে কেকে সিং। এর কিছুদিন পর অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী কে গ্রে-ফ-তার করা হয়। যদিও 28 দিন জেল হেফাজতে থাকার পর মুক্তি পেয়ে যান রিয়া।তবুও অভিনেতার মৃত্যুর কষ্ট এখনো তার অনুরাগীদের মধ্যে বর্তমান।

তার মৃ-ত্যু-কে নেহাতই একটি আ-ত্ম-হ-ত্যা হিসেবে দেখতে রাজি নন অনুরাগীরা।সম্প্রতি এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হল সুশান্ত সিং রাজপুতের ঘনিষ্ঠ বন্ধু হোটেল ব্যবসায়ী কুনাল জানি কে। ত-দ-ন্ত শুরু হওয়ার পর থেকেই গা ঢাকা দিয়ে ছিলেন কুনাল। বৃহস্পতিবার মুম্বাইয়ের খার এলাকা থেকে তাকে গ্রে-ফ-তা-র করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে এনসিবি। সম্ভবত সুশান্তের এই ঘনিষ্ঠ বন্ধুর থেকে বেশ কিছু তথ্য পাওয়ার আশা করছে তদন্তকারীরা।

অপরদিকে সুশান্তের মৃ-ত্যু-র পর একাধিক টানাপোড়েন পেরিয়ে আবারও স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টা করছেন তার প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তী। ইতিমধ্যেই আবারো সোশ্যাল মিডিয়ায় একটিভ হয়ে গিয়েছেন রিয়া। জমিয়ে শুরু করেছেন ফটোশুট এবং অন্যান্য কাজ। দিন কয়েক আগেই ইনস্টাগ্রামে বান্ধবী নিধির সঙ্গে ছবি শেয়ার করে নারী শক্তির উদাহরণ দিয়েছিলেন তিনি। ছবির ক্যাপশনে রিয়া লিখেছিলেন,”প্রতিটি শক্তিশালী মহিলার পাশেই একজন অতি শক্তিশালী মহিলা থাকে যে ক্রমাগত তাকে সর্বোত্তম হওয়ার জন্য তাগিদ দিয়ে যায়”।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button