স্কুল পোশাকে খোলা মাঠে অসাধারণ নাচ নাচল যুবতীর দল, মুহূর্তে ভাইরাল ভিডিও

সাম্প্রতিক কালে সোশ্যাল মিডিয়া এমন একটি প্লাটফর্ম হয়ে দাঁড়িয়েছে, যেখানে যেকোনো ধরনের খবর ভাইরাল হতে খুব কম সময় লাগে। কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে হাজার হাজার মানুষের কাছে পৌছে যাওয়া সম্ভব শুধুমাত্র সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অনেকেই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

কত সাধারন যুবক যুবতীরাও অসাধারণ নাচ গান করতে পারে, তা সোশ্যাল মিডিয়ায় না দেখলে বিশ্বাস করা যায় না। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় নাচের এরকম একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে তাও স্কুলের মাঠে। ভিডিওটি সম্পূর্ন বাংলাদেশের একটি ভিডিও।

বাংলাদেশের কোন একটি স্কুলের মাঠে ডান্স পারফর্ম করতে দেখা গিয়েছে বেশকিছু জন ছাত্রীকে। প্রত্যেকের পরনে এদিন ছিল নীল এবং কালো রঙের স্কুলড্রেস। বাংলাদেশের জনপ্রিয় একটি বাংলা গানের সঙ্গে ডান্স পারফর্ম করতে দেখা গিয়েছে এই স্কুল ছাত্রীদের।

এপার বাংলার মতোই ওপার বাংলার নৃত্যশিল্প বিকাশ ঘটানোর খেট্রেবজে কতটা উদ্যোগী ছাত্রছাত্রীরা, তার প্রমাণ মিলেছে ভিডিওতে। তাদের নাচ দেখে মুগ্ধ হয়ে গেছেন সকলে। মিউজিকের তালে তালে যে এনার্জি নিয়ে তারা নাচ করেছে তা সত্যিই সুন্দর।

বডি মুভমেন্ট আর তার সাথে এক্সপ্রেশন এককথায় অনবদ্য। স্কুলের মাঠের মধ্যে অসাধারণ ভঙ্গিমায় এই স্কুল ছাত্রীদের নাচের ভিডিও রীতিমতো আলোড়ন সৃষ্টি করেছে সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে। মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে এই নাচের ভিডিওটি।

ভিডিওটি শুরুর দিকে একদল যুবক বাংলাদেশের পতাকা নিয়ে মাঠে প্রবেশ করে। এ থেকেই বোঝা গিয়েছে ভিডিওটি বাংলাদেশের। মিস্টার দীপু নামক জনৈক ব্যক্তি নিজের ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভিডিওটি পোস্ট করেছেন। বিগত এক বছর আগে পোস্ট করা হয়েছে এই ভিডিও।

কথাই বলে পুরনো চাল ভাতে বাড়ে। তারই প্রমাণ মিলেছে ভিডিওটিতে।এক বছর আগে পোস্ট করা এই ভিডিওটি বর্তমান দর্শকসংখ্যা দেড় মিলিয়নেরও বেশি। ১০ হাজার লাইক পড়েছে ভিডিওটিতে। কমেন্ট সেকশনে সকলেই বাংলাদেশি কন্যাদের নাচের ব্যাপক প্রশংসা করেছেন।

প্রত্যেকদিন এমনই কত ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ভাইরাল হতে দেখা যায়। কেউ কেউ সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করতে অংশগ্রহণ করলেও দুদিনের মধ্যে তাদের আর পাত্তা পাওয়া যায় না।

কিন্তু কেউ কেউ নিজেদের প্রমাণ করতে একেবারে সর্বস্ব দিয়ে চেষ্টা করে যান। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অনেকেই নিজেদের ক্যারিয়ার গড়ে তোলেন। এখান থেকে কিছু ইনকাম হয়। তাই সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে এগিয়ে যান অনেকেই।

আরও পড়ুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button